প্রেসবিবৃতি: গত ১৪মার্চ হাইলাকান্দিতে সংঘটিত ধর্ষণ এবং তৎপরবর্তী সাম্প্রদায়িক রাজনীতির নিন্দা জানায় বিএইচআরপিসি

by

গত ১৪মার্চ তারিখে হাইলাকান্দি জেলার  বেতছড়া গ্রামে ১৩ বছর বয়সী কিশোরীর ধর্ষণ এবং তৎপরবর্তী খুনের ঘটনাটি নিয়ে বিএইচআরপিসি  তীব্রভাবে শংকিত এবং লজ্জিত। এ ঘটনা আমাদের আরেকবার সমাজের সবচেয়ে জঘন্যতম দিকটির সামনে দাঁড় করিয়ে দেয়। যেখানে দুজন মানুষ শুধু তার লিঙ্গ পরিচয়ের সুবাদে অসমান। শুধুমাত্র লিঙ্গ পরিচয়ের সুবাদে একজন মানুষকে তার জীবন,আত্মসম্মান সব হারাতে হয়। এমতাবস্থায় ভারতীয় দণ্ডবিধি অবশ্য এই অপরাধের সবচেয়ে জঘন্যতম শাস্তির বিধান দিয়ে আমাদেরকে অল্প স্বস্তি দেয়। তাই বিএইচআরপিসি চায় এই ঘটনায় জড়িত অপরাধীর কঠিন থেকে কঠিনতম শাস্তি হোক।

তাছাড়া বর্তমান সময়ে জম্মু এবং কাশ্মীরের রাসনা গ্রামের ঘটনাটি থেকে শুরু করে সাম্প্রতিকতম এই ঘটনাটি নিয়েও যে ধরণের সাম্প্রদায়িক রাজনীতির এক ঘৃণ্য চক্রান্তের প্রবনতা দেখা গেছে বিএইচআরপিসি এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। এবং প্রশাসনের কাছে এসব কাজে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের আবেদন রাখছে।

Representative photo taken from internet.

Representative photo.

 তবে বিএইচআরপিসি মনে করে ধর্ষণ একটি সামাজিক অপরাধ। ধর্ষণের ক্ষেত্রে অপরাধী মনস্তত্ত্বের সাথে সাথে আমাদের আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক পরিকাঠামোও বহুলাংশে দায়ী। সেজন্য প্রত্যেকজন অপরাধীর শাস্তি সুনিশ্চিত করার সাথে সাথে এইসকল অপরাধের চিরনির্মূলীকরণের জন্য বিএইচআরপিসি  আরেকবার ২০১২ সালে জাস্টিস বার্মা কমিটির দেওয়া নিম্নলিখিত  সুপারিশ সমূহ সম্পূর্ণরূপে বাস্তবায়নের আবেদন রাখছে-

১/ ধর্ষণের মামলাসমূহের সহজ নিষ্পত্তির জন্য আলাদাভাবে একটি সুপটু ‘রেইপ  সেল’ বা ‘ধর্ষন প্রকোষ্ঠ’ নির্মাণ করতে হবে। যারা এরকম ঘটনাদি রিপোর্ট হওয়ার সাথে সাথে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এবং বিনামূল্যে আইনি সাহায্য প্রধানের জন্য সচেষ্ট হবে।

২/ সবকটি থানা এবং জিজ্ঞাসাবাদ কক্ষকে CCTV ক্যামরার আওতায় আনতে হবে।

৩/ অনলাইলে এফআইআর দেওয়ার বন্দোবস্ত করতে হবে।

৪/ এসব ঘটনার সাক্ষী এবং সাহায্যকারী দের সাথে অপরাধীদের মতো ব্যবহার করা যাবে না।

৫/ পুলিশবিভাগকে উপযুক্তভাবে লিঙ্গ সংবেদনশীল করে গড়ে তুলতে হবে।

৬/ ধর্ষণের মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের আইন করে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযোগ্য বলে ঘোষণা করতে হবে।

৭/  যৌন শিক্ষাকে শৈক্ষিক পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। বিএইচআরপিসি এক্ষেত্রে সর্বাঙ্গীণ যৌনশিক্ষা বা Comprehensive Sexuality Education এর প্রচলনের পক্ষে।

৪/  রাজ্য সরকারের যাতে প্রশাসনের উপর প্রতিপত্তি খাটাতে না পারে সেজন্য রাজ্য পুলিশ সুরক্ষা কমিশন বা State Police Security Commission গঠন করতে হবে।

৫/ ২০১৪ সালে ভারতীয় স্বাস্থ্য এবং পরিবার মন্ত্রকের নির্দেশিকা মতে জঘন্য এবং অমানবিক two-finger test এর প্রচলন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করতে হবে।

Advertisements

Tags: , , , ,


%d bloggers like this: